ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থায় হানা! আলমারী ভর্তি টাকা দেখে চক্ষু চড়কগাছ আয়কর আধিকারিকদের

23
ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থায় হানা! আলমারী ভর্তি টাকা দেখে চক্ষু চড়কগাছ আয়কর আধিকারিকদের

আয়কর দপ্তরের নজর এড়াতে আলমারী ভর্তি রাশি রাশি টাকা লুকিয়ে রেখেছিল এক ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থা। তবে আয়কর দপ্তরের হানার পরেই মিলল সেই গুপ্তধনের সন্ধান। ওই ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থায় হানা দিয়ে গোপন আলমারির খোঁজ পেয়েছেন আয়কর দপ্তর আধিকারিকেরা। আলমারী ভর্তি থরে থরে টাকা সাজানো দেখে তাদের চক্ষু চড়কগাছ।

টাকা ভর্তি সেই আলমারির ছবি তুলে সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেছেন তারা। এত টাকা আলমারির মধ্যে দেখে নেটিজেনরাও অবাক। আয়কর দপ্তর এর তরফ থেকে এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে জানানো হয়েছে যে হায়দ্রাবাদের ওই ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থায় হানা দিয়ে মোট 142 কোটি টাকা উদ্ধার করা হয়েছে।

দুবাই, ইউরোপ, আমেরিকা, আফ্রিকার মতো নানা দেশ থেকে এসেছিল সেই টাকা। গত 12 ই অক্টোবর একাধিক রাজ্যে তল্লাশি অভিযান চালায় আয়কর দপ্তর। এই অভিযানে সব মিলিয়ে হিসেব বহির্ভূত প্রায় 550 কোটি টাকার সন্ধান মিলেছে। আগেই সংস্থার একাউন্ট খতিয়ে দেখেছিলেন আয়কর কর্তারা। এরপর ব্যক্তিগত লকারের সন্ধান মিলেছে। সেই লকার খোলার পরেই কার্যত চমকে ওঠেন তারা। কারণ 500 টাকার নোটে আলমারি ছিল ঠাসা।

এই সংস্থার করোনায় ব্যবহৃত ওষুধ রেমডিসিভার উৎপাদনের সঙ্গে জড়িত বলে জানা গিয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে বহু পেনড্রাইভ উদ্ধার করা হয়েছে। পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখছেন আয়কর দপ্তরের আধিকারিকেরা। এই বেআইনী টাকা কোথায় কোথায় বিনিয়োগ করা হয়েছে তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।