দুয়ারে সরকার দ্বারা ১২টি প্রকল্প সরাসরি রাজ্যবাসীর কাছে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছেঃ রাজ্য সরকার

7
দুয়ারে সরকার দ্বারা ১২টি প্রকল্প সরাসরি রাজ্যবাসীর কাছে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছেঃ রাজ্য সরকার

আসন্ন একুশের বিধানসভা নির্বাচনের প্রেক্ষাপটে বিজেপি যখন তৃণমূল দলে অবিরাম ভাঙন ধরানোর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে, রাজ্য সরকারের সমালোচনা করে জনমানসের রাজ্য বিরোধী ধ্যান ধারণা গড়ে তোলার অবিরাম প্রয়াস চালাচ্ছে, ঠিক তখনই মমতা সরকার ভোট প্রচারের মাস্টার স্ট্রোক হিসেবে “দুয়ারে দুয়ারে সরকার” প্রকল্পের উদ্বোধন করে সারা রাজ্যে রীতিমতো সাড়া ফেলে দিয়েছে। এই প্রকল্পের আওতায় রাজ্য সরকারের ১২টি প্রকল্প সরাসরি রাজ্যবাসীর কাছে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে।

গত বছরের ডিসেম্বর মাস থেকে শুরু করে চলতি বছরের ১৮ই জানুয়ারি পর্যন্ত এই রাজ্যের দুয়ারে সরকার প্রকল্পের আওতায় অন্তত ১ কোটি ২০ লক্ষ ৬৮ হাজার ৪২ জন মানুষ উপকৃত হয়েছেন, মঙ্গলবার এমনই পরিসংখ্যান তুলে ধরলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, মমতা সরকারের দুই মাসব্যাপী দুয়ারে সরকার প্রকল্প আগামী ২৫শে জানুয়ারি শেষ হতে চলেছে। তার আগে এই পরিকল্পনা থেকে প্রাপ্ত সুযোগ-সুবিধার আংশিক খতিয়ান তুলে ধরলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

মঙ্গলবার মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, রাজ্যের “দুয়ারে দুয়ারে সরকার” প্রকল্পের আওতায় রাজ্যবাসীকে সরকারি পরিষেবা প্রদান করতে রাজ্য জুড়ে এ পর্যন্ত মোট ২১ হাজার ৮৫৭টি শিবির খোলা হয়েছে। ২ কোটি ২৫ লক্ষ ৭৮ হাজার ১৯৫ জন মানুষ ইতিমধ্যেই সরকারি পরিষেবা পেতে নিজ নিজ শিবিরে নাম নথিভুক্ত করেছেন। এরমধ্যে ১ কোটি ২০ লক্ষেরও বেশি মানুষ তাদের প্রয়োজনীয় পরিষেবা পেয়ে গিয়েছেন, এমনটাই দাবি করছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এদিন তিনি আরও বলেছেন, রাজ্য সরকারের পরিকল্পনার দরুন রাজ্যের প্রায় ৭৫ লক্ষ ৮৩ হাজার ৭০১ জনের কাছে “স্বাস্থ্যসাথী” প্রকল্পের সুবিধা পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হয়েছে। এছাড়াও দুয়ারে সরকার প্রকল্পের মাধ্যমে খাদ্য সাথী, শিক্ষাশ্রী, জয় জোহার, রূপশ্রী, কন্যাশ্রী, তপশিলি বন্ধু, ঐক্যশ্রী, কৃষক বন্ধু, মানবিক ইত্যাদি বিভিন্ন সরকারি পরিষেবা রাজ্যবাসীর কাছে পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হয়েছে। তবুও বিরোধীরা দুয়ারে সরকার প্রকল্পের বিরোধিতা করে রাজ্যবাসীকে ভুল বোঝানোর চেষ্টা করে চলেছে, এমনটাই অভিযোগ করেন মুখ্যমন্ত্রী।