মাত্র ১৫ বছর বয়সেই পিএইচডি করে তাক লাগিয়ে দিলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত এই যুবক

16
মাত্র ১৫ বছর বয়সেই পিএইচডি করে তাক লাগিয়ে দিলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত এই যুবক

মিরাকেল ঘটে আমাদের আশেপাশে অনেক প্রত্যেকদিন প্রতিনিয়ত, ভালোভাবে একটু খোঁজ নিলেই বোঝা যাবে সে কথা। পড়াশোনা কতখানি উপকারী জিনিস তা আমরা সময় থাকতে বুঝতে পারিনা। যখন বুঝতে পারি তখন অনেক দেরি হয়ে যায়। পড়াশোনা না করলে উপযুক্ত সম্মান পাওয়া যায়না পরিবার এবং সমাজের কাছ থেকে। সঠিকভাবে শিক্ষিত না হতে পারলে চাকরি ও ভালো ভাবে পাওয়া যায় না।

আমরা জীবনের প্রথম পরীক্ষা দিই মাধ্যমিকের সময়। তখন আমাদের বয়স থাকে খুব জোরে ১৪ কি ১৫, কিন্তু যদি আপনাকে বলা হয় যে এই বয়সেই কেউ পিএইচডি করে ফেলেছে, তখন নিশ্চয়ই অবিশ্বাস করবেন আমাকে। সত্যি বিশ্বাস না করার মতোই এই কথাটি। কারণ মাধ্যমিকের পরীক্ষা পাস করার পর অনেক দূর এগিয়ে তবে পিএইচডি করতে হয়। ভালো পড়াশোনা হলেও কিছুটা সময় অন্তত লাগেই।

কিন্তু এই অসম্ভবকে সম্ভব করে দেখিয়েছে ভারতীয় বংশোদ্ভূত এক মার্কিন ছেলে। এই ছেলেটির নাম তানিস্ক আব্রাহাম। বয়স যখন মাত্র ৭ বছর ছিল, তখন কলেজে ভর্তি হয়েছিল সে। তাও আবার একসাথে তিনটে কলেজে। মাত্র ১৪ বছর বয়সী বিশ্ববিদ্যালয়ের গণ্ডি পার করে ফেলেছিল এই আশ্চর্য বালক। এরপর এইচডি পড়তে শুরু করে দেয় সে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বায়োকেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করে সে। তারপরে ডক্টরেট হবার জন্য নিজেকে প্রস্তুত করতে শুরু করে। দুর্দান্ত মেধার সাহায্যে যুগান্তকারী আবিষ্কার করে ফেলেছে এই ছোট্ট ছেলেটি। আগুনে পোড়া কোন শরীর স্পর্শ না করেই হূদযন্ত্রের নানান গতি বৃদ্ধি মাপার যন্ত্র বানিয়েছে এই ছেলেটি। এই আশ্চর্য আবিষ্কার করার পরে তার নাম বিজ্ঞান মহলে ছড়িয়ে গেছে।

জন্মসূত্রে বিদেশি হলেও তাদের আদি পরিবার থাকে ভারতের কেরালা তে। এরপর তারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান। সেখানেই পাকাপাকি ভাবে বসবাস করা শুরু করেন। তানিস্কের এই সফলতায় গোটা পরিবার সহ বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনা সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।