মার্বেলের মূর্তির গায়ে ট্যাটু এঁকে তাক লাগিয়ে দিলেন ইতালির এক ট্যাটু শিল্পী

4
মার্বেলের মূর্তির গায়ে ট্যাটু এঁকে তাক লাগিয়ে দিলেন ইতালির এক ট্যাটু শিল্পী

ট্যাটু বা শরীরে উল্কি আঁকা এখন প্রায়ই অনেকেরই ভীষন প্রিয়। ওয়েস্টার্ন দেশ গুলি থেকে ট্যাটুর জনপ্রিয়তা এখন আমাদের দেশেও এসে পৌঁছেছে। অনেকেই নিজের শরীরে ট্যাটু আঁকতে ভালোবাসেন। নিজের প্রিয় গায়ক, নায়ক, খেলোয়াড়দের শরীরে আঁকা ট্যাটু দেখেও অনুপ্রাণিত হোন অনেকে। তাই ট্যাটুর জনপ্রিয়তা ধীরে ধীরে প্রসার লাভ করছে। এই ট্যাটু একেই বিশ্ব বিখ্যাত হলেন ইতালির এক শিল্পী। তবে কোনো মনুষ্য শরীরে নয়, তিনি ট্যাটু এঁকেছেন মার্বেলের মূর্তির গায়ে।

ইতালির ট্যাটু শিল্পী ফাবিও বিয়ালে ফোবিয়ার একটি মার্বেলের মূর্তির গায়ে ট্যাটু এঁকেছেন। শিল্পী জানালেন, মানব ত্বকে ট্যাটু আকার তুলনায় মার্বেলে ট্যাটু ফুটিয়ে তোলা অত্যন্ত কষ্টসাধ্য কাজ। মানব ত্বকে ১৫ থেকে ৪০ মিনিট সময়ের মধ্যেই সুন্দরভাবে ট্যাটু আঁকা যায়। কিন্তু মার্বেলের গায় ট্যাটু আঁকতে অনেকটাই বেশি সময় লাগে। তিনি আরো জানিয়েছেন, মার্বেলের গায়ে ট্যাটু আঁকতে তার চার দিন সময় লাগে।

ফ্যাবিও জানিয়েছেন, ইতালির কারারা অঞ্চলের বিখ্যাত এক উন্মুক্ত খাদে গিয়ে তিনি মার্বেলের গায়ে ট্যাটু আকার কাজ শিখেছেন। ফাবিওর শিল্প ক্ষেত্রে যে গ্যালারিতে প্রদর্শন করা হয় সেই গ্যালারির মালিক পিয়েত্রো গ্যালিয়ার্দি জানালেন, নিজের কাজে অত্যন্ত আনন্দ পান ফাবিও। খুব বেশি জটিলতার মধ্যে না গিয়ে যেন খেলার ছলেই সুন্দর শিল্পকলা ফুটিয়ে তুলতে পারেন।

মার্বেলের গায়ে সুন্দর ট্যাটু একে বিশ্ব বিখ্যাত হয়েছেন যে শিল্পী, তার শরীরে কিন্তু কোনো ট্যাটু আঁকা নেই। তবে ট্যাটু শিল্পের জগতে মেতে রয়েছেন শিল্পী। প্রতিনিয়ত নিজের কাজে উন্নতি ঘটিয়ে চলেছেন ফাবিও। বর্তমান উন্নত প্রযুক্তির দুনিয়ায় শরীরের ত্বকে ট্যাটু বা উল্কি আঁকানোর ক্ষেত্রে কোনো কষ্ট অনুভব হয় না। তবুও অনেক মানুষের মধ্যেই ট্যাটু আঁকানো নিয়ে ভয় কাজ করে। জনসাধারণের মধ্যে ট্যাটু শিল্পকে অন্য মাত্রায় পৌঁছে দিতেই প্রতিনিয়ত কাজ করে চলেছেন ইতালির এই বিশ্ব বিখ্যাত শিল্পী ফাবিও।