লালকেল্লায় ভাঙচুরের ঘটনায় অপরাধীদের নামে এফআইআর, শুরু হল ধরপাকড়

7
লালকেল্লায় ভাঙচুরের ঘটনায় অপরাধীদের নামে এফআইআর, শুরু হল ধরপাকড়

কৃষক আন্দোলনকে কেন্দ্র করে রীতিমতো উত্তাল হয়ে উঠেছে দিল্লি। প্রজাতন্ত্র দিবসে কৃষকদের লাল কেল্লা দখল সেই আন্দোলনকে এক নতুন মাত্রা দিয়েছে। গতকাল লালকেল্লায় আন্দোলনকে কেন করে দিল্লিতে কার্যত ধুন্ধুমার কান্ড বেধে যায়। পুলিশি প্রতিরোধ উপেক্ষা করেই লালকেল্লায় প্রবেশ করেন বিক্ষোভরত কৃষকরা। পুলিশ সূত্রে খবর, এদিন কৃষকদের তাণ্ডবে দিল্লিতে সরকারি সম্পত্তির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

কৃষকদের বিরুদ্ধে লালকেল্লায় কর্মরত নিরাপত্তারক্ষীদের উপর হামলা চালানোর অভিযোগ তুলেছে পুলিশ। রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা অনেক গাড়ি ভাঙচুর করেছেন তারা। এ দিনের ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে এখনো পর্যন্ত ২২টি এফআইআর দায়ের করেছে। সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখে লালকেল্লায় ঢুকে যারা ভাঙচুর করেছেন এবং সরকারি সম্পত্তি ক্ষতি করেছেন তাদের খুঁজে বার করা হচ্ছে।

পাশাপাশি এই ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপের পেছনে কৃষক সংগঠনের যে যে নেতাকর্মী রয়েছেন, তাদের খুঁজে বার করার প্রচেষ্টা চলছে। লালকেল্লার সুরক্ষায় সচেষ্ট হয়েছে পুলিশ। ড্রোনের মাধ্যমে এলাকার পরিস্থিতির উপর নজর রাখা হচ্ছে। পাশাপাশি লাল কেল্লার আশেপাশে কোনো দুষ্কৃতী লুকিয়ে আছে কিনা, তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রহ্লাদ প্যাটেল বুধবার লালকেল্লা পরিদর্শনে যান।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ২৬শে জানুয়ারি ট্রাক্টর মিছিল বের করে কৃষকেরা জোর করেই লালকেল্লায় প্রবেশ করেন। কৃষকদের ট্রাক্টর প্যারেডের জন্য নির্ধারিত রুট ভেঙে এবং পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙে লালকেল্লায় প্রবেশ করে তান্ডব চালিয়েছেন কৃষকেরা। মুহুর্তের মধ্যেই পুলিশ এবং কৃষকদের মধ্যে রীতিমতো ধুন্ধুমার কান্ড বেঁধে যায়। দিল্লিতে শান্তি বজায় রাখতে ইন্টারনেট পরিষেবা সাময়িকভাবে বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক।