মেট্রোরেল চলাচলের অনুমতি দিলেও লোকাল ট্রেন গুলি আপাতত বন্ধই থাকছে রাজ্যে

7
মেট্রোরেল চলাচলের অনুমতি দিলেও লোকাল ট্রেন গুলি আপাতত বন্ধই থাকছে রাজ্যে

মেট্রোরেলের পর এবার ধীরে ধীরে লোকাল ট্রেন চালু করার কথা ভাবছে ভারতীয় রেল বোর্ড। তবে, সংক্রমণ এড়াতে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে নির্দিষ্ট বিধিনিষেধ মেনে রাজ্যে মেট্রোরেল চলাচলের অনুমতি দিলেও লোকাল ট্রেন গুলির চলাচল আপাতত বন্ধই থাকছে রাজ্যে। পূর্ব রেলের জেনারেল ম্যানেজার সুনীত শর্মা জানালেন, লোকাল ট্রেন গুলির চলাচল সম্পর্কে রাজ্যের সাথে নিয়মিত আলোচনা চালাচ্ছে রেল কর্তৃপক্ষ।

উল্লেখ্য, দেশে করোনা মহামারীর সংক্রমণ শুরু হওয়ার মুহূর্ত থেকে সংক্রমণ এড়াতে প্রায় ছয় মাস ধরে দেশের প্রতিটি রাজ্যে মেট্রো এবং লোকাল ট্রেন চলাচল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছিল। আগামী ২১শে সেপ্টেম্বর থেকে পশ্চিমবঙ্গে মেট্রো রেল চলাচলে অনুমতি দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে মানতে হবে সরকার নির্ধারিত বেশ কিছু বিধিনিষেধ। এবার লোকাল ট্রেন গুলির চলাচলের পালা।

তবে রাজ্যে কবে থেকে লোকাল ট্রেন পরিষেবা চালু হবে সে সম্পর্কে এখনো কিছু জানা যায়নি। এদিকে যেসকল নিত্যযাত্রীরা ট্রেনের মান্থলি টিকিট কাটেন লকডাউনে ট্রেন পরিষেবা বন্ধ থাকায় তারা যাত্রা করতে পারেননি, উপরন্তু মান্থলির সময় সীমাও পেরিয়ে গেছে। এই সকল যাত্রীদের মান্থলি টিকিটের মেয়াদ বাড়ানোর কথা ভাবছে রেল কর্তৃপক্ষ।

তবে, লোকাল ট্রেনের ভিড় সামলানো মেট্রোরেলের মতো অতটা সহজ হবে না বলেই মনে করছে রেল কর্তৃপক্ষ। পরিসংখ্যান অনুযায়ী, এতদিন পূর্ব রেলের তরফ থেকে দিনে প্রায় ১৪০০ টি ট্রেন চালনা করা হতো। এই সকল ট্রেন মিলিয়ে প্রতিদিন প্রায় ৩০ লক্ষেরও বেশি মানুষ যাতায়াত করতেন। ফলে, লোকাল ট্রেন পরিষেবা চালু হলে, ভিড় এড়ানো স্বভাবতই রেল কর্তৃপক্ষের কাছে একটি বড় চ্যালেঞ্জ।