রেল পরিষেবা চালু হতে না হতেই শুরু টিকিট প্রতারণার অভিযোগ! মুদ্রণ করা হচ্ছে রঙিন নকল টিকিট

10
রেল পরিষেবা চালু হতে না হতেই শুরু টিকিট প্রতারণার অভিযোগ! মুদ্রণ করা হচ্ছে রঙিন নকল টিকিট

দীর্ঘ আট মাস পর ট্রেন পরিষেবা স্বাভাবিকের পথে এগোচ্ছে। তবে রেল পরিষেবা চালু হতে না হতেই টিকিট বুকিংয়ের ক্ষেত্রে প্রতারণার অভিযোগ আসতে শুরু করেছে। অভিযোগ করছেন রেলের একাধিক যাত্রী। রেল টিকিটের প্রতারকরা এবার এক অভিনব উপায় অবলম্বন করেছে। একেবারে রেলের আসল টিকিটের আদলে রঙিন নকল টিকিট মুদ্রণ করা হচ্ছে এবং তা দিয়েই যাত্রীদের বোকা বানানোর কাজ চলছে।

কিভাবে চলছে এই প্রতারণা? সেন্ট্রাল রেলের এক তদন্তকারী আধিকারিক জানালেন, প্রতারকেরা সিনিয়র সিটিজেনদের কোটার টিকিট বুক করছে। এরপর সেই টিকিট স্ক্যান করে নিয়ে কারেকশন সফটওয়্যার ব্যবহার করে যাত্রীর নাম, বয়স বদলে দেওয়া হচ্ছে। এরপর সেই টিকিটের রঙিন প্রিন্ট আউট বের করে নিয়ে আবারো তা যাত্রীদের কাছে বিক্রি করা হচ্ছে।

সেন্ট্রাল রেলের কাছে ইতি মধ্যেই ভুয়ো টিকিট সংক্রান্ত ৪২৮টি অভিযোগ জমা পড়েছে। এরমধ্যে ১০২টি এসি ক্লাসের টিকিট প্রতারণার অভিযোগও রয়েছে। চলতি বছরের জুন মাস থেকে এমন কাণ্ড চলছে বলে জানা গিয়েছে। রেলওয়ে দপ্তর সূত্রে খবর, আসল টিকিটের পিএনআর নম্বর, ট্রেন নম্বর এবং বার্থ নম্বর ব্যবহার করে নকল টিকিট মুদ্রণ করা হচ্ছে। করোনা উপলক্ষে ওয়েটিং লিস্টে টিকিট দেওয়ার অনুমতি নেই।

এমন পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে শুধুমাত্র যাত্রীদের নাম আর বয়স পরিবর্তন করে দিয়েই প্রতারণা চক্র চলছে। উল্লেখ্য, একই বাদ নিয়ে দুই যাত্রীর বচসা চলাকালীন প্রথম এই সমস্যার কথা জানতে পারে সেন্ট্রাল রেল। এদিকে নকল টিকিট নিয়ে ট্রেনে সফররত যাত্রীদের জরিমানাধার্য করার পাশাপাশি তাদের ট্রেন থেকে নামিয়েও দেয় আরপিএফ। এমতাবস্থায় যাত্রী চরম ভোগান্তির সম্মুখীন হন। দেশের সর্বত্রই এমন প্রতারণা চক্র চলছে। তাই রেলের টিকিট নিয়ে সাবধান।