টিকা প্রাপকদের তালিকায় একেবারে প্রথমেই আলিপুরদুয়ারের বিধায়কের নাম যা নিয়ে বিতর্ক তুঙ্গে

5
টিকা প্রাপকদের তালিকায় একেবারে প্রথমেই আলিপুরদুয়ারের বিধায়কের নাম যা নিয়ে বিতর্ক তুঙ্গে

প্রথম থেকে বলা হয়েছে এই প্রথম ধাপের করোনার টিকা করন কেবলমাত্র দেওয়া হবে প্রথম সারির করোনা যোদ্ধাদের জন্য। মোটকথা এই টিকাকরণ এ থাকছে না কোন পদাধিকারীর অগ্রাধিকার। আর সেই কথা মাথায় রেখেই আপাতত বিভিন্ন জেলায় বিভিন্ন কেন্দ্রে শুরু হয়েছে টিকা করন প্রক্রিয়া। কিন্তু এর মধ্যেই ঘটেছে অবাক করা একটি ঘটনা, আলিপুরদুয়ার জেলার বিধায়ক সৌরভ চক্রবর্তীর নাম রয়েছে এই টিকা প্রাপকদের তালিকায়। তাও সেই তালিকার একেবারে প্রথমেই রয়েছে বিধায়কের নাম যা নিয়ে বিতর্ক তুঙ্গে। এই খবর কানে পেতেই স্বাভাবিকভাবেই বিজেপি চুপ করে থাকবে না। তাই আলিপুরদুয়ার জেলা বিজেপির সাধারণ সম্পাদক জানিয়েছেন, একেবারে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যবিধি কে অমান্য করে বিধায়ককে প্রথম টিকাকরণ যেটা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।

এদিকে ডক্টর গিরিশচন্দ্র বেরা যিনি কিনা আলিপুরদুয়ার জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য সচিব তিনি বলেছেন, রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান বিধায়ক সৌরভ চক্রবর্তীর নাম টিকা প্রাপকদের তালিকায় রয়েছে। আর করোনা যোদ্ধা হিসেবে তিনি প্রথম টিকা পেতেই পারেন, তবে যে জলঘোলা ও বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে তার পরে তিনি টিকা নিতে অস্বীকার করেছেন বলেই জানা যাচ্ছে। এদিকে আবার জানা গেছে দার্জিলিং জেলায় যে ১৮ হাজার ডোজ এসেছিল তার মধ্যে ১ হাজার ডোজ সেনাবাহিনীর জন্য আলাদা করে রাখা হয়েছে।

নতুন করে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে মানুষকে বলার কিছুই নেই। গত বছরের প্রায় শুরু থেকেই এই করোনার দাপট সারাদেশে। ঝারগ্রাম একটার সময় কেন্দ্রীয় সরকার লকডাউন প্রক্রিয়ার পথে হেঁটেছে। দিনের-পর-দিন সংক্রমণ বৃদ্ধি ও মৃত্যুর সংখ্যা বৃদ্ধি অনেকটাই চিন্তায় ফেলেছিল সরকারকে। একের পর এক বিভিন্ন প্রকল্প আর্থিক সাহায্য দিয়ে মানুষকে করোনা যুদ্ধে লড়াইয়ের আহ্বান জানানো হয়েছিল। যার ফলে এ দেশের অর্থনীতি একেবারে তলানিতে ঠেকেছিল। কিন্তু সব কিছুকে বিচার করে দেশ আনলক এর পথে হেঁটেছে। ধীরে ধীরে খুলেছে বাজার দোকানপাট শুরু হয়েছে কল কারখানা। কিন্তু এখনো বন্ধ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। তাই মানুষকে সর্বদা নিয়ম বিধি মেনে চলার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। জমায়েত না করার মাস্ক-স্যানিটাইজার বাধ্যতামূলক করার কথা বলা হয়েছিল। কিন্তু সবাই পথ চেয়ে ছিল ভ্যাকসিনের টিকাকরণ, যেটা এখন ইতিমধ্যেই প্রথম ধাপে শুরু হয়ে গেছে।