ভারতের প্রথম মহিলা ফটোগ্রাফার হিসেবে “ওয়াইল্ডলাইফ ফটোগ্রাফার অফ দা ইয়ার” অ্যাওয়ার্ড পেলেন ঐশ্বরিয়া শ্রীধর

8
ভারতের প্রথম মহিলা ফটোগ্রাফার হিসেবে

বিশ্বের দরবারে ভারতের গৌরবের মুকুটে নতুন পালক এনে দিলেন ঐশ্বরিয়া শ্রীধর। ভারতের প্রথম মহিলা ফটোগ্রাফার হিসেবে তিনি জিতে নিলেন “ওয়াইল্ডলাইফ ফটোগ্রাফার অফ দা ইয়ার” অ্যাওয়ার্ড। লন্ডনের ন্যাচারাল হিস্ট্রি মিউজিয়ামে সংশ্লিষ্ট সংস্থার তরফ থেকে “ওয়াইল্ডলাইফ ফটোগ্রাফার অফ দা ইয়ার” অ্যাওয়ার্ডের ৫৬ তম বর্ষপূর্তির দিন পুরস্কার প্রাপক হিসেবে ঐশ্বরিয়ার নাম ঘোষণা করা হয়। ভারতবর্ষের জন্য এই দিনটি একটি ঐতিহাসিক দিনে পরিণত হল।

উল্লেখ্য, বিশ্বের আশিটি দেশের থেকে অন্তত ৫০,০০০ ওয়াইল্ডলাইফ ফটোগ্রাফারকে টেক্কা দিয়ে এই সম্মান ছিনিয়ে নিলেন ঐশ্বরিয়া। অগুনতি ছবির মধ্যে থেকে সংস্থার তরফ থেকে ১০০টি ছবি চূড়ান্ত করা হয়। তার মধ্যে থেকেই অমেরুদন্ডী প্রাণীদের আচরণ ক্যামেরাবন্দি করে এই সম্মানের জন্য মনোনীত হন ঐশ্বরিয়া। ঐশ্বরিয়া তার ছবি নাম রেখেছিলেন “লাইটস অফ প্যাশন”। তিনি এই ছবি তুলেছিলেন Canon’s premium DSLRs — EOS-1DX Mark II ক্যামেরার মাধ্যমে।

উল্লেখ্য, ঐশ্বরিয়া শ্রীধর একজন নামকরা ফটোগ্রাফার হওয়ার পাশাপাশি, তিনি একজন লেখিকা এবং চলচ্চিত্র নির্মাতা। তিনি তাঁর অসাধারণ ফটোগ্রাফির দৌলতে আগেও পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। এর আগে নিউ ইয়র্কে আয়োজিত নবম ওয়াইল্ড লাইফ কনজারভেশন ফিলম ফেস্টিভালে অংশগ্রহণ করে তার “কুইন অফ তারু” ডকুমেন্টারির জন্য বিজেতা হিসেবে মনোনীত হন তিনি।

তার এই কৃতিত্বে উচ্ছ্বসিত সারাদেশ। কনজিউমার সিস্টেম প্রোডাক্টস এন্ড ইমেজিং কমিউনিকেশন প্রোডাক্টসের কর্মকর্তা সি সুকুমারান তাকে শুভেচ্ছা বার্তা দিয়ে জানালেন, “ক্যানন সংস্থার জন্য এটি একটি গর্বের মুহূর্ত। EOS-1D X Mark II ক্যামেরা ব্যবহার করে এত বড় সম্মানে ভূষিত হয়েছেন ঐশ্বরিয়া। ভবিষ্যতে, এরকমই আরো কৃতিত্বের দাবিদার হোন তিনি”।

তিনি জিতে নিলেন “ওয়াইল্ডলাইফ ফটোগ্রাফার অফ দা ইয়ার” অ্যাওয়ার্ড। লন্ডনের ন্যাচারাল হিস্ট্রি মিউজিয়ামে সংশ্লিষ্ট সংস্থার তরফ থেকে “ওয়াইল্ডলাইফ ফটোগ্রাফার অফ দা ইয়ার” অ্যাওয়ার্ডের ৫৬ তম বর্ষপূর্তির দিন পুরস্কার প্রাপক হিসেবে ঐশ্বরিয়ার নাম ঘোষণা করা হয়। ভারতবর্ষের জন্য এই দিনটি একটি ঐতিহাসিক দিনে পরিণত হল।

উল্লেখ্য, বিশ্বের আশিটি দেশের থেকে অন্তত ৫০,০০০ ওয়াইল্ডলাইফ ফটোগ্রাফারকে টেক্কা দিয়ে এই সম্মান ছিনিয়ে নিলেন ঐশ্বরিয়া। অগুনতি ছবির মধ্যে থেকে সংস্থার তরফ থেকে ১০০টি ছবি চূড়ান্ত করা হয়। তার মধ্যে থেকেই অমেরুদন্ডী প্রাণীদের আচরণ ক্যামেরাবন্দি করে এই সম্মানের জন্য মনোনীত হন ঐশ্বরিয়া। ঐশ্বরিয়া তার ছবি নাম রেখেছিলেন “লাইটস অফ প্যাশন”। তিনি এই ছবি তুলেছিলেন Canon’s premium DSLRs — EOS-1DX Mark II ক্যামেরার মাধ্যমে।

উল্লেখ্য, ঐশ্বরিয়া শ্রীধর একজন নামকরা ফটোগ্রাফার হওয়ার পাশাপাশি, তিনি একজন লেখিকা এবং চলচ্চিত্র নির্মাতা। তিনি তাঁর অসাধারণ ফটোগ্রাফির দৌলতে আগেও পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। এর আগে নিউ ইয়র্কে আয়োজিত নবম ওয়াইল্ড লাইফ কনজারভেশন ফিলম ফেস্টিভালে অংশগ্রহণ করে তার “কুইন অফ তারু” ডকুমেন্টারির জন্য বিজেতা হিসেবে মনোনীত হন তিনি।

তার এই কৃতিত্বে উচ্ছ্বসিত সারাদেশ। কনজিউমার সিস্টেম প্রোডাক্টস এন্ড ইমেজিং কমিউনিকেশন প্রোডাক্টসের কর্মকর্তা সি সুকুমারান তাকে শুভেচ্ছা বার্তা দিয়ে জানালেন, “ক্যানন সংস্থার জন্য এটি একটি গর্বের মুহূর্ত। EOS-1D X Mark II ক্যামেরা ব্যবহার করে এত বড় সম্মানে ভূষিত হয়েছেন ঐশ্বরিয়া। ভবিষ্যতে, এরকমই আরো কৃতিত্বের দাবিদার হোন তিনি”।