ফের পাকিস্তানের সংঘর্ষ বিরতি চুক্তি লঙ্ঘনের ফলে শহীদ ভারতীয় দুই জওয়ান

8
ফের পাকিস্তানের সংঘর্ষ বিরতি চুক্তি লঙ্ঘনের ফলে শহীদ ভারতীয় দুই জওয়ান

আবারও সীমান্তে সংঘর্ষ বিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করলো পাকিস্তান। পাক সেনাবাহিনীর গুলি বর্ষণের জেরে সীমান্ত ভারতীয় সেনা জওয়ানদের রক্তে রাঙ্গা হয়ে উঠলো। ভারতীয় সেনাবাহিনী সূত্রে খবর, শুক্রবার সকালে কাশ্মীরের রাজৌরি জেলার সান্ডারবানি সেক্টরে ভারতীয় সেনাদের লক্ষ্য করে গুলি চালায় পাক সেনাবাহিনী। এর জেরে নায়েক প্রেম বাহাদুর ক্ষত্রী এবং কনস্টেবল সুখবীর সিং নামক দুই ভারতীয় জওয়ান শহীদ হয়েছেন বলে খবর পাওয়া গিয়েছে।

পাক সেনাবাহিনীর অতর্কিত হামলার জেরে ঘটনাস্থলেই গুরুতরভাবে জখম হন ওই দুই ভারতীয় জওয়ান। এরপর ঘটনাস্থলেই তাদের মৃত্যু হয়। সেনা সূত্রে খবর, এদিন সকালে সীমান্তের ওপার থেকে ভারতীয় সেনাবাহিনীর ঘাঁটি লক্ষ্য করে ছুটে আসে গুলি। শুধু তাই নয়, সীমান্ত সংলগ্ন গ্রামগুলিতেও মর্টার ছুঁড়েছে পাক সেনা। তবে পাক সেনাবাহিনীর হামলার পাল্টা জবাবও দিয়েছে ভারত। উল্লেখ্য, এদিন বিনা প্ররোচনাতে আবারও সংঘর্ষ বিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করে ভারতীয় সেনার উপর হামলা চালালো পাকিস্তান।

গত ৩রা নভেম্বরেও পাক সেনার অতর্কিত আক্রমণের জেরে ৬ জন ভারতীয় সেনা-সহ ১১ জন প্রাণ হারান। এর পাল্টা হিসেবে অবশ্য সীমান্ত সংলগ্ন বেশ কয়েকটি পাক সেনা ঘাঁটি রীতিমতো গুঁড়িয়ে দিয়েছে ভারতীয় সেনা। ভারতীয় সেনার পাল্টা আক্রমণে পাকিস্তানের বেশ কয়েকজন সেনার মৃত্যু হয়েছে বলে খবর পাওয়া গিয়েছিল। উল্লেখ্য, গতকালই ২৬/১১ এর ভয়াবহ মুম্বাই হামলার বর্ষপূর্তি ছিল।

এই দিনেও ভারতীয় সেনা জওয়ানদের উপর জঙ্গি আক্রমণ চলে। যার জেরে শ্রীনগরের প্রান্তে পারিমপোরা এলাকায় ভারতের দুই জওয়ান শহীদ হয়েছেন। পুলিশ সূত্রে খবর, নিহত দু’জন সেনা ভারতের ‘কুইক রিঅ্যাকশন টিমের’ (কিউআরটি) সদস্য ছিলেন। সেনাবাহিনীর অনুমান, জইশ-ই-মোহাম্মদের তিনজন সদস্য সম্ভবত এই হামলার পেছনে দায়ী। দুষ্কৃতীদের খোঁজে এলাকায় ব্যাপক তল্লাশি চলছে। শীঘ্রই তারা ধরা পড়বে বলে আশা করছে উপত্যকা অঞ্চলের প্রশাসন।