পুলওয়ামা হামলার পর হঠাৎ করেই থমকে যায় ক্যারিয়ার! শুনুন কি বললেন এই পাক অভিনেত্রী

9
পুলওয়ামা হামলার পর হঠাৎ করেই থমকে যায় ক্যারিয়ার! শুনুন কি বললেন এই পাক অভিনেত্রী

যতবার পাকিস্তান আমাদের ভারতবর্ষে আক্রমন করেছিল অথবা যতবার পাকিস্তান জঙ্গিদের হাতে মৃত্যু হয়েছিল ভারতীয় সেনার, ততবার ভারতবর্ষের সমস্ত ক্রিকেটার অথবা অভিনেতা-অভিনেত্রীদের ওপর ক্ষোভ উগরে দিয়েছিল ভারত বাসিরা। তেমনই একজন নায়িকা হলেন মাহিরা খান। পাকিস্তানি এই সুন্দরী রইস সিনেমার হাত ধরে প্রবেশ করেছিলেন বলিউডে। তারপর হামসাফার, বিন রোয়ের মতো বেশ কিছু নাটকে অভিনয় করেছিলেন তিনি। কিন্তু পুলওয়ামা হামলার পর হঠাৎ করেই থমকে যায় তার ক্যারিয়ার। সম্প্রতি এই নিয়ে কথা বলতে শোনা গেল তাকে।

মাহিরা খান জানিয়েছেন যে, বিষয়টা যে দুর্ভাগ্যজনক সে কথা বার বার বলবো। কিন্তু আমি এটা নিয়ে যখন চিন্তা করি, তখন আমার মনে হয় আমাদের সকলকেই জীবনে এগিয়ে যেতে হবে। আমাদের কাছেই একটা সুযোগ না থাকলে আরো অনেক সুযোগ আসবে। জীবন কোনভাবে থেমে থাকে না। কিন্তু উপমহাদেশে শিল্পীদের একসঙ্গে কাজ করার সুযোগ থমকে গিয়েছে। ভবিষ্যতে কোনদিন একসাথে কাজ করার সুযোগ আসবে কিনা সেটাও জানা নেই।

সম্প্রতি জি নেটওয়ার্কের সিরিজ ইয়ার জুলাহের হাত ধরে আরো একবার ভারতীয় দর্শকদের সামনে হাজির হয়েছিলেন তিনি। জনপ্রিয় লেখক আহ্মেদ নাদিম গুড়িয়া গল্পটি পাঠ করেছিলেন তিনি। অভিন্নহৃদয় দুই বন্ধু মেহর এবং বানোর গল্প হলো গুড়িয়া।

অভিনেত্রী আরো জানান যে, আমার কাছে বহু ওয়েব সিরিজ এর অফার এসেছিল। কিন্তু এই কথা কেউ বুঝবে কিনা জানিনা, তবে তখন সত্যিই আমি ভীত ছিলাম। ভয়ের জন্য আমি কাজ করতে পারিনি। লোকে কি বলবে তা নিয়ে ভয় পাইনি আমি, আমি বুঝতে পারিনি আমি সত্যিই ওখানে যেতে চাই কিনা। তবে সেই কাজ গুলি হাতছাড়া হয়ে যাবার পর সত্যি খুব কষ্ট হয়েছিল।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, রাইস মুক্তি পেলেও বিক্ষোভের জেরে ছবির প্রচারে ভারতে আসেন তিনি। পুলবামা হত্যাকাণ্ডের পর যেভাবে পাকিস্তানকে নিয়ে ভারতীয়দের মধ্যে অসন্তোষ তৈরি হয়েছিল, তার ফলে অল ইন্ডিয়া সিনে ওয়ার্কার অ্যাসোসিয়েশন প্রযোজক সংস্থা, মিউজিক কোম্পানিগুলোকে রীতিমতো চিঠি লিখে সচেতন করেছিল। যদিও পাকিস্তানি শিল্পীদের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেনি ভারত সরকার, কিন্তু তাও বিক্ষোভের জন্য বহু পাকিস্তানি অভিনেতা-অভিনেত্রীরা তখন ভারতে আসেন নি।