তালিবান জঙ্গীদের ভয়ে রাতারাতি দেশত্যাগ করলেন আফগানিস্তানের মহিলা ফুটবলাররা

13
তালিবান জঙ্গীদের ভয়ে রাতারাতি দেশত্যাগ করলেন আফগানিস্তানের মহিলা ফুটবলাররা

আফগানিস্তানে তালিবানি সন্ত্রাসের রাজত্বে সুরক্ষিত নন সেই দেশের মহিলা খেলোয়াড়রা। তাই আফগানিস্তানের মাটিতে জঙ্গিদের রাজত্ব স্থাপন হওয়ার পরপরই দেশ ছাড়তে বাধ্য হলেন তারা। পরিবার পরিজনসহ রাতারাতি দেশত্যাগ করে পাকিস্তানে পালিয়ে যেতে বাধ্য হলেন আফগানিস্তানের মহিলা ফুটবলাররা। তালিবান জঙ্গীদের হুমকির মুখে পড়ে ভয় পেয়ে পাকিস্তানে পালিয়ে যেতে বাধ্য হলেন তাঁরা।

আফগানিস্তানের মহিলা ফুটবলার রাজাদের নিরাপদে পাকিস্তানে পালিয়ে যেতে পারেন তার জন্য সরকারের তরফ থেকে জরুরী মানবিক ভিসা জারি করা হয়েছিল। খেলোয়াড়দের পূর্ব নির্ধারিত সময়সূচী অনুযায়ী আফগানিস্তানের জাতীয় জুনিয়র দলের মহিলা খেলোয়াড়দের কাতার যাওয়ার কথা ছিল। ২০২২ ফিফা বিশ্বকাপের জন্য আফগানিস্তানের মহিলা খেলোয়াড়দের আপাতত একটি স্টেডিয়ামে রাখা হয়েছে।

২৬শে আগস্ট আফগানিস্তানের কাবুল বিমানবন্দরে বোমা হামলার কারণে ১৩ আমেরিকান এবং আফগানিস্তানের ১৭০ বেসামরিক আফগান নাগরিকের মৃত্যু হয়। পাকিস্তানের ডন পত্রিকার রিপোর্ট অনুসারে, এই মহিলা খেলোয়াড়রা এতদিন ফুটবল খেলার জন্য তালিবান হুমকির সম্মুখীন হচ্ছিল। তালিবানরা আফগানিস্তানের দখল নেওয়ার পরই এরা তালিবানদের হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য আত্মগোপন করেছিলেন।

যুক্তরাজ্যভিত্তিক একটি এনজিও ‘ফুটবল ফর পিস’, সরকার এবং পাকিস্তান ফুটবল ফেডারেশনের সহায়তায় আফগানিস্তান থেকে দুইজন মহিলা খেলোয়াড়কে সরিয়ে আনা হয়েছে। এই মহিলা ফুটবলাররা পেশোয়ার থেকে লাহোর যান এবং সেখানে পাকিস্তানের ফুটবল ফেডারেশনে রাখা হয় তাদের। ফিফা সভাপতি জিয়ান্নি ইনফান্তিনো গত সপ্তাহে দোহা সফরের সময় আফগান শরণার্থীদের সঙ্গে দেখা করেছেন।