আফগানিস্তানে বসবাসরত আত্মীয় ও বন্ধুদের জন্য আশঙ্কিত অভিনেত্রী আর্শি খান

17
আফগানিস্তানে বসবাসরত আত্মীয় ও বন্ধুদের জন্য আশঙ্কিত অভিনেত্রী আর্শি খান

একটি দুঃস্বপ্নের মতো দিন কাটছে আফগানিস্তান বাসীদের। আফগানিস্তান বাসীরা হয়তো কোনদিন স্বপ্নেও ভাবতে পারেনি যে এইরকম কোনদিন তাদের দেখতে হবে। সম্পূর্ণ আফগানিস্তান এখন তালিবানদের দখলে। টানা কুড়ি বছর আত্মগোপন করে থাকার পর এবার ক্ষমতায় আসতে চলেছে তালিবান। আজ থেকে কুড়ি বছর আগে যখন ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার হামলা করেছিল তালিবানরা, ঠিক সেইসময় ওসামা বিন লাদেনকে আত্মগোপন করার স্থান করে দিয়েছিল আফগানিস্তান তথা কাবুল। টানা কুড়ি বছর আফগানিস্তানে মার্কিন সেনা বহাল থাকার ফলে তালিবানরা মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারেনি। মার্কিন সেনারা আফগানিস্তান থেকে সরে যেতে না যেতেই তালিবানরা দখল নিয়ে নেয় সম্পূর্ণ আফগানিস্তানের ওপর।

এই সমস্ত দৃশ্য দেখে আমরা সকলেই ভীষণভাবে ভীত এবং সন্ত্রস্ত। আফগানিস্থানে যেভাবে তালিবানরা ক্ষমতায় চলে এসেছে তা দেখে রীতিমতো শঙ্কিত অন্যতম বিখ্যাত অভিনেত্রী আর্শি খান। যেহেতু তিনি নিজেও আফগান, তাই তার এই বিষয়ে একটু বেশি চিন্তা হচ্ছে। অভিনেত্রীর জন্ম আফগানিস্থানে।

এখনো ছোটবেলার কয়েকজন বন্ধু রয়েছে আফগানিস্তানে, বিশেষত তাদের নিয়ে বেশি চিন্তিত তিনি। সম্প্রতি সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন তিনি, আমার জন্ম আফগানিস্থানে। পরে পরিবারের সঙ্গে ভারতে এসেছিলাম। আজ আফগানিস্তানের উপস্থিত প্রত্যেক মহিলাদের কথা ভেবে আমি চিন্তিত। আমি আফগানি পাঠান। আমার জন্মস্থান আফগানিস্তানে। এখন যদি আমি ওখানে থাকতাম, ঠিক কি অবস্থা আমার হতো তা ভেবে গায়ে কাঁটা দিচ্ছে।

পাশাপাশি তিনি বলেন, সারাদিন চিন্তার মধ্যে রয়েছি। ভালো ভালো খাবার খেতে পাচ্ছি না। আমাদের অনেক আত্মীয় বা বন্ধুবান্ধব আছে আফগানিস্তানে। ওদের কথা ভেবে সারাদিন চিন্তায় কাটছে আমাদের। কিন্তু আজ আমরা অসহায়। শুধু ভগবানের কাছে প্রার্থনা করি যেন সবকিছু ঠিকঠাক হয়ে যায়।

প্রসঙ্গত, অভিনেত্রীর যখন চার বছর বয়স, আফগানিস্তানের ভোপালে চলে আসে তার পরিবার। পরবর্তী সময়ে অভিনয়কে পেশা হিসেবে বেছে নেন তিনি। ২০১৪ সালে একটি তামিল ছবি দিয়ে অভিনয় করতে শুরু করেন তিনি। এরপর বিগ বসে অংশগ্রহণ করে সকলের কাছে জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন আর্শি খান।