তৃণমূলের ত্রিপুরা ‘চ্যালেঞ্জ’-এ এবার অস্ত্র হতে চলেছেন অভিনেতা তথা সাংসদ দেব

13
তৃণমূলের ত্রিপুরা ‘চ্যালেঞ্জ’-এ এবার অস্ত্র হতে চলেছেন অভিনেতা তথা সাংসদ দেব

ত্রিপুরার বিধানসভা নির্বাচনকে এবার টার্গেট করতে চলেছে তৃণমূল। বিধানসভা ভোট তৃতীয় বার বাংলা দখলের পরেই তৃণমূলের নজর গেছে দেশের উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলির দিকে। বিজেপি শাসিত ত্রিপুরাতেও নিজেদের ক্ষমতা প্রতিষ্ঠার জন্য উঠেপড়ে লেগেছে এই রাজনৈতিক দল। সেই উদ্দেশ্য মাথায় রেখেই ত্রিপুরায় দলের গতিবিধি বাড়িয়েছেন তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্ব। তাই তৃণমূলের ত্রিপুরা ‘চ্যালেঞ্জ’-এ এবার অস্ত্র হতে চলেছেন অভিনেতা তথা সাংসদ দেব। এই সপ্তাহের শেষের দিকেই তিনি আগরতলা যেতে পারেন বলে তৃণমূল সূত্রের খবর।

ত্রিপুরা প্রদেশ তৃণমূলের সভাপতি আশিসলাল সিংহ বলেন, ‘‘চলতি সপ্তাহেই আমাদের দলের অভিনেতা সাংসদ দেব আগরতলায় আসতে পারেন।” তবে তাঁর কর্মসূচি এখনো তৈরি হয়নি বলেই খবর। ত্রিপুরা নিয়ে দায়িত্ব নিজের কাঁধেই তুলে নিয়েছেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। এ ছাড়াও পাঁচ জন নেতাকে প্রতি মাসে তিন দিন করে ত্রিপুরায় সময় দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন যে দেবের মতো প্রথম সারির কোনো তারকাকে এই মিশনে ব্যবহার করার কৌশল সত্যিই অভিনব। কারণ পশ্চিমবঙ্গের পর ত্রিপুরাতেই সবচেয়ে বেশি বাঙালির বাস। বাংলার বাইরে ত্রিপুরায় দেবের ফ‍্যান ফলোয়িং বাংলার তুলনায় কোনো অংশে কম নয়। বিশেষ করে নতুন প্রজন্মের ভোটারদের কাছে টলিউডের এই নায়কের গ্রহণযোগ্যতা অন্যান্যদের তুলনায় অনেকটাই বেশি।

প্রসঙ্গত, গত সপ্তাহেই অভিনেত্রী তথা যুব তৃণমূলের পশ্চিমবঙ্গ শাখার সভানেত্রী সায়নী ঘোষ গিয়েছিলেন ত্রিপুরায়। সেখানে গিয়ে বেশ কিছু দলীয় কর্মসূচিতে অংশও নিয়েছিলেন তিনি। অভিনেত্রীর পর এবার বিপ্লব দেবের রাজ‍্যে দেবের কী ভূমিকা থাকে সেটাই এখন দেখার বিষয়।