কেন্দ্র থেকে জানানো হলো, কত তাপমাত্রায় এসি চালালে সংক্রমণ এড়ানো যাবে?

62
কেন্দ্র থেকে জানানো হলো, কত তাপমাত্রায় এসি চালালে সংক্রমণ এড়ানো যাবে?

গোটা দেশ জুড়ে করোনা আতঙ্ক। করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই যাচ্ছে, বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যাও। করোনা মোকাবিলার জন্য ৩ মে পর্যন্ত লকডাউন বাড়িয়ে দিয়েছে কেন্দ্র সরকার। সম্প্রতি সিঙ্গাপুরের এক সংস্থা জানিয়েছে, শুধু হাঁচি, কাশি, ছোঁয়া নয়, এয়ারকন্ডিশন মেশিনের মাধ্যমেও করোনা ছড়াতে পারে। ন্যাশনাল সেন্টার ফর ইনফেকশাস ডিসিজ এর উপর একটি পরীক্ষা করেছিল। ৩ জন করোনা আক্রান্ত রোগীকে রাখা হয়েছিল। শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত এমন একটি ঘরের এয়ার ডাক্টের মধ্যে করোনার জীবাণু মিলেছে। এই ঘটনার ফলে বেড়েছে আতঙ্ক। তবে সুখবর দিল কেন্দ্র সরকার। জানিয়ে দিল করোনা ভাইরাস রুখতে ঠিক কত তাপমাত্রায় এসি চালাতে হবে।

কেন্দ্র সরকারের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, ২৪ থেকে ৩০ ডিগ্রি তাপমাত্রায় এই ভাইরাসের সংক্রমণ কম হয়। তাই ঘরের তাপমাত্রা এটাই রাখতে বলছে কেন্দ্র। শুক্রবার কেন্দ্রের তরফে প্রকাশিত একটি অ্যাডভাইজরিতে প্রকাশ করা গাইডলাইনে বলা হয়েছে, এসির আপেক্ষিক আর্দ্রতা  ৪০ থেকে ৭০ শতাংশের মধ্যে রাখতে হবে। গাইডলাইনে বলা হয়েছে, এসি চালানোর পর ঘরের জানলা একটু খোলা রাখতে হবে, এরফলে ঘরের ঠান্ডা হাওয়ার সার্কুলেশনের সঙ্গে বাইরের হাওয়ায় একটু  ঘরে ঢুকবে এবং ভিতরের হাওয়ায় কিছুটা বেরিয়ে যাওয়ার সুযোগ পাবে। ঘরের আপেক্ষিক আর্দ্রতা কখনই ৪০ শতাংশের নীচে নামতে দেওয়া যাবে না।

যেহেতু লকডাউনের ফলে সব অফিস বন্ধ রয়েছে, তাই সেগুলি খোলার পর এয়ার সার্কুলেশন ভালোভাবে করতে হবে। বদ্ধ জায়গায় ফাঙ্গাস বা ব্যাকটেরিয়া দ্রুত কাজ করে, তাই অফিস কিংবা প্রতিষ্ঠানগুলি খোলার পর ঘরের দরজা জানলা খুলে এসি ফ্যান চালিয়ে এয়ার সার্কুলেশন ভালোভাবে করে নিতে হবে। তাপমাত্রা এবং আপেক্ষিক আর্দ্রতার সঙ্গে সংক্রমণের একটি বিস্তর যোগাযোগ রয়েছে বলে জানানো হচ্ছে।