গবেষকদের মতে নিজের বয়স ধরে রাখতে যত্ন নিন শরীরের এই অঙ্গের

16
গবেষকদের মতে নিজের বয়স ধরে রাখতে যত্ন নিন শরীরের এই অঙ্গের

সময়ের সাথে সাথে আমাদের সকলেরই বয়স বেড়ে যায়। না চাইলেও আমাদের শরীরে দেখা যায় বার্ধক্যের ছাপ। শরীরের সাথে সাথে মনের জোর যেন কমে যায়। কিন্তু এই নিয়ে মন খারাপ করলে চলবে না। সময়কে এবং বয়স কি হারানোর জন্য আপনাকে নিতে হবে বিভিন্ন কৌশল। এই প্রতিবেদনে আপনাকে জানাবো সেই কৌশলেরই কিছু পদক্ষেপ।

জিব ছোলা, এটি একেবারেই বিজ্ঞানসম্মত। গবেষকরা বলছেন যে, মুখের ভেতরে ব্যালেন্স ব্যাকটেরিয়া তৈরি হলে বয়সের উপর তার প্রভাব পড়ে। বয়স যেমনই হোক না কেন, নিয়মিত জিব ছোলা ব্যবহার করলে আপনার শরীরে কিছু উপকারী ব্যাকটেরিয়া জন্ম নেয়। এই অনুজীব মুখের রশি অথবা লালায় নাইটিট্রেস উৎপাদন করে। এটি বয়স লুকাতে একেবারে অব্যর্থ।

এবার জেনে নিন কিভাবে তৈরি হয় এই উপকারী ব্যাকটেরিয়া। গবেষকদের মতে, জিভ পরিষ্কার করার জন্য যখন জিভের  উপরে খোঁচানো হয় তখন সেখানে লেগে থাকা খাবারের কনা অথবা লেগে থাকা টুকরো খাবার বেরিয়ে আসে। এর ফলে গুড ব্যাকটেরিয়া বাড়াতে সক্ষম হয়। আমাদের মুখমন্ডলের জিভের মধ্যে ৫০% নাইট্রিক অক্সাইড উৎপাদন হয়।

এবার জেনে নিন কিভাবে বয়স কমাতে সাহায্য করে এই নাইট্রিক অ্যাসিড? গবেষকদের মতে বয়স বাড়তে থাকলে ক্রোমোজোমের নিচের দিকটা কর্ম ক্ষমতা হারায়। একইভাবে কোষের মধ্যে থাকা মাইটোকনড্রিয়ার কাজের ক্ষমতা কমে যায়। তৃতীয়তঃ স্টেম সেলের কর্মক্ষমতা কমে যায় ফলে আমাদের ত্বকের কোনো ক্ষয়ক্ষতি তাড়াতাড়ি সারতে চায় না।

মুখের লালায় তৈরি নাইটিটেস এই সবকিছুর মোকাবিলা করতে সক্ষম। মুখের ব্যাকটেরিয়া দ্বারা উৎপাদিত নাইটিটেস পেটে গিয়ে তৈরি হয় নাইট্রিক অ্যাসিড। এটি বয়সে হাত থেকে আমাদের রক্ষা করে। তাহলে আর দেরি নয়। আজকেই শুরু করে দিন এই ভালো অভ্যাস এবং ধরে রাখুন আপনার মনের মতো বয়সকে।