চাণক্যের মতে আদর্শ স্ত্রীর মধ্যে অবশ্যই থাকতে হবে এই চারটি গুণ

9
চাণক্যের মতে আদর্শ স্ত্রীর মধ্যে অবশ্যই থাকতে হবে এই চারটি গুণ

অসাধারণ পান্ডিত্যের জন্য আজও সকলের কাছে সমানভাবে বিখ্যাত চাণক্য রাষ্ট্রবিজ্ঞান দর্শন এবং সমাজবিজ্ঞান বিষয়ে তাঁর অসামান্য দক্ষতা আজও আমাদের মুগ্ধ করে দেয়। এই মহাজ্ঞানী পুরুষকে দেখা হয় ভারতের মেকিয়াভেলি বলে। চাণক্য যেমন একাধিক সমস্যার সমাধান দিয়ে গেছেন, এমন অনেক সমস্যার কথা বলে গেছেন যা আজও আমাদের স্মরণ করা খুব প্রয়োজন।

আজ আমরা আলোচনা করব এমনই কিছু সমস্যা নিয়ে। আদর্শ স্ত্রীর কিছু গুণাবলী নিয়ে চাণক্য নিজের মতামত সকলের কাছে তুলে ধরেছিলেন। তিনি বলেছিলেন আদর্শ স্ত্রীর মধ্যে থাকতে হবে অবশ্যই এই চারটি গুণ।

ধৈর্যশীলতা: একজন আদর্শ স্ত্রী হতে গেলে তাকে ধৈর্যশীল হতে হবে। পুরুষের আদর্শ সহধর্মিনী তিনি হতে পারেন যিনি ধৈর্যশীল হন। জীবনের চক্র সুখ এবং দুঃখের আবর্তিত থাকে, তাই দুঃখের সময় স্বামীর পাশে দাঁড়িয়ে সমস্ত পরিস্থিতিতে মোকাবিলা করার শক্তি যে নারীর মধ্যে থাকে সেই নারী হয় আদর্শ নারী।

মিষ্টভাষী: একজন আদর্শ স্ত্রীর একটি বড় গুণ হলে তিনি সর্বদা মিষ্টভাষী হবেন। তিনি তার স্বামীকে স্বর্গ সুখ দিতে সক্ষম হবেন তার স্বভাবের দ্বারা। কর্কশ ভাসি হলে দাম্পত্য জীবনে কলহের পরিমাণ বেড়ে যায়।

ধার্মিক: চাণক্যের মতে একজন স্ত্রী ধার্মিক না হলে সেই সংসারে সুখ শান্তি বিরাজ হয় না। অধার্মিক যেকোনো সময় সঙ্গ পরিত্যাগ করতে পারেন, কিন্তু একজন ধার্মিক স্ত্রী সংসার কেউ নিজের ধর্ম বলে মনে করেন এবং শত কষ্টেও লড়াই থেকে বিমুখ হন না।

শান্ত স্বভাব: একজন শান্ত প্রকৃতির স্ত্রী সব সময় আদর্শ স্ত্রী রূপে বিবেচিত হন। অকারনে কলহের বাতাবরণ যিনি সৃষ্টি করেন তিনি সকলের চোখে খারাপ হয়ে যান। অতিরিক্ত রাগ ধ্বংসের মূল কারণ হয়ে দাঁড়ায় এবং সেই সহজে নষ্ট হয়ে যায়। তাই শান্ত স্বভাবের স্ত্রী স্বামীর ভাগ্য পরিবর্তনের বড় ভূমিকা পালন করতে পারে।