মহাবিশ্ব নিয়ে অদ্ভুত দাবি রাশিয়ার এক বালকের

10
মহাবিশ্ব নিয়ে অদ্ভুত দাবি রাশিয়ার এক বালকের

এই মহাবিশ্বের আনাচে কানাচে কত গভীর রহস্য লুকিয়ে আছে। তার কতটুকুই বা আমরা জানতে পারি? খোঁজ মহাকাশ বিজ্ঞানীরাও সমস্ত রহস্য সমাধান করে উঠতে পারেননি। তবে রাশিয়ার এক বালক কিন্তু এই মহাবিশ্ব নিয়ে অদ্ভুত দাবি করছে। তার দাবি সে মঙ্গল গ্রহ থেকে এসেছে এবং পৃথিবীতে নাকি তার পুনর্জন্ম হয়েছে। বিভিন্ন প্রতিবেদনে এই বালককে বিস্ময় বালক হিসেবে চিহ্নিত করা হচ্ছে।

মহাকাশ সম্পর্কে তার অসাধারণ জ্ঞান রয়েছে। সমগ্র বিশ্বের বিজ্ঞানীরাও তার জ্ঞান দেখে রীতিমতো অবাক হয়ে গিয়েছেন। ওই বালক বলছে সে নাকি মানুষ হিসেবে নতুন জীবন শুরু করার আগে মঙ্গল গ্রহের বাসিন্দা ছিল। সে দাবি করে হাজার হাজার বছর আগে পারমাণবিক সংঘর্ষে তাদের প্রজাতি সম্পূর্ণ ধ্বংস হয়ে যায়। এখন আমাদের পৃথিবী ও নাকি সেই একই দিকে এগোচ্ছে।

সে আরো বলেছে পৃথিবীবাসীরাও তার লোকদের মতো ধ্বংসের মুখোমুখি হতে চলেছেন। তবে মানবজাতিকে বাঁচানোর লক্ষ্যে তাকে এখানে পাঠানো হয়েছে। সে দাবি করে সে ছিল মঙ্গল গ্রহের পাইলট। যুদ্ধে তার গ্রহ ধ্বংস হয়ে যাওয়ার পর সে পৃথিবীর উদ্দেশ্যে যাত্রা করেছিল। মঙ্গল গ্রহে এখনো কিছু বাসিন্দার অস্তিত্ব রয়েছে। মানব জাতিকে ধ্বংসের হাত থেকে বাঁচাতে অন্যান্য মানুষের সঙ্গে পৃথিবীতে পুনর্জন্ম নিয়েছে সে।

এই বিস্ময় বালকের নাম বোরিস্কা। সে বলে মঙ্গল গ্রহের বাসিন্দারা শারীরিকভাবে ৭ ফুট লম্বা ছিলেন এবং প্রযুক্তিগতভাবে অনেক উন্নত ছিলেন। তারা মহাকাশ ভ্রমণ করতে পারতেন। তাদের বয়স নাকি সর্বোচ্চ ৩৫ বছর ছিল। সে জানিয়েছে তার বয়স যখন ১৪-১৫ বছর তখন মঙ্গল গ্রহে যুদ্ধ হচ্ছিল। মঙ্গল গ্রহে মহাকাশযানগুলো ছিল গোলাকার এবং খুবই জটিল। সে দাবি করেছে মিশরের গ্রেট স্ফিংসের মধ্যে একটি রহস্য লুকিয়ে আছে। যেদিন তার দরজা উন্মোচিত হবে সেদিন থেকে পৃথিবীর জীবন চিরতরে পরিবর্তিত হয়ে যাবে।