ঘনবসতিপূর্ণ একটা গ্রাম রাতারাতি উধাও হয়ে যায়! জানুন এই গ্রামের রহস্য

4
ঘনবসতিপূর্ণ একটা গ্রাম রাতারাতি উধাও হয়ে যায়! জানুন এই গ্রামের রহস্য

স্থানটা হলো রাজস্থানের জয়সলমীর। আজ এই এলাকার যে গল্প বলব সেটি আজকের গল্প নয় বহু প্রাচীন ইতিহাস। আজ থেকে প্রায় 200 বছর আগে অর্থাৎ ১২৯১ সালে এই জয়সলমীরের কুলধারা গ্রামে বসবাস শুরু করতেন পালিওয়ার ব্রাহ্মণরা। তারা মরুভূমিতে গম চাষ করতেন।

এক সময় এই গ্রামে যখন ঘনবসতিপূর্ণ ছিল হঠাৎ করেই একদিন সমস্ত বসতি উধাও হয়ে গেল কেন এমন ঘটনা ঘটলো এর উত্তরে অনেকেই বলেন ইতরামি নাকি ভূত করে বেড়ায়। কিন্তু ককে ভূত? কেনই বা এই গ্রামে ভুতের বসবাস শুরু হল এর উত্তর সঠিকভাবে কেউ নিতে পারেনা। জানা যায় দিওয়ান সলিম সিং কুলধারা গ্রামের প্রধানের মেয়ের প্রেমে পড়েন। প্রধানের মেয়েকে তিনি বিবাহ করতে চান। তখন প্রধানকে হুমকিস্বরুপ বলেন যদি তাঁর সাথে প্রধানের কন্যার বিবাহ না দেওয়া হয় তবে বড় মাপের খাজনা আদায় করবেন। তবে পাশাপাশি ৮০ টি এলাকার মানুষজন তখন এই কথাটি মেনে নিতে পারেননি। তারপর একদিন এর মধ্যেই ওই গ্রামের সমস্ত জনবসতি কোথাও যেন হারিয়ে যায়।

200 বছর আগে যে গ্রামটি জনবসতিপূর্ণ ছিল এখন সেই মাটিতে ঘুরপাক খেয়ে বেড়াচ্ছে বাতাস। আগের মত এই গ্রাম আর আনন্দে খুশিতে ভরে ওঠে না শিশুর কান্নার আওয়াজ মেলে না আর। ফিস ফিস করে যেন তাদের কথার আওয়াজ পাওয়া যায়। পাশ দিয়ে দৌড়ে চলে যায় কোন একটা ছায়া। এছাড়াও কখনো কখনো দেয়ালে কার্ড হাতের ছাপ দেখা যায় এইসবের জেরি আজ আর কোন মানুষ বই গ্রামের মাটিতে পা দেয় না। এই ভয় কে দূর করার জন্য রাজস্থান সরকার ওই ক্লান্তিতে পর্যটনকেন্দ্র খুলে দিয়েছেন কিন্তু সাড়া মেলেনি মানুষদের।