মাত্র ৫ বছরের একটি শিশু চালাচ্ছে টয়োটা ল্যান্ড ক্রুজার v8, ভিডিও দেখে হতবাক নেট দুনিয়া

16
মাত্র ৫ বছরের একটি শিশু চালাচ্ছে টয়োটা ল্যান্ড ক্রুজার v8, ভিডিও দেখে হতবাক নেট দুনিয়া

আর কতই না আশ্চর্য হবো আমরা দিনে দিনে, মানুষ এত বেশি আনকন্সাস হয়ে যাচ্ছে। যেটা তারা নিজেরাই বুঝছে না যে কি পরিমাণ একটা ভয়ঙ্কর ভবিষ্যৎ আমরা ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে চলেছি।

কথায় আছে বাবা মা ই আসল শিক্ষাগুরু, তারাই যদি এরূপ শিক্ষা দেয় তাহলে আর কি বলবো কি বা বলার থাকতে পারে? না হলে এই ভিডিওটিতে যা দেখা যাচ্ছে তা এক চমকে দেবার ঘটনা।

কোন বাবা-মা তার শিশু সন্তানের সাথে এরূপ করতে পারে বলে ধারনা নেই। কারণ ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে, একটি বছর পাঁচেকের শিশু এসইউভি গাড়ি চালাচ্ছে, গাড়িটি হলো টয়োটা ল্যান্ড ক্রুজার v8।

বাচ্চাটি স্টিয়ারিং এর সামনে দাঁড়িয়ে রয়েছে শুধুমাত্র তার পা টি যাতে নিচে ব্রেক পর্যন্ত পৌঁছায়। গাড়িটি খুবই দ্রুত গতিতে চালাচ্ছে। তাও আবার কোন সিগন্যাল মানছে না, এবং সবথেকে চমকে দেওয়ার বিষয় হল, বাচ্চাটি ব্রেক পর্যন্ত পাও পাবে না তাকে নেমে ঝুঁকে ব্রেক করতে হবে।

এমতাবস্তায় কি করে এইটুকু বাচ্চাকে একটা গাড়ি চালাবার জন্য তার বাবা-মা দিতে পারে এটাই একটা আশ্চর্যজনক ঘটনা ,যা দেখে সোশ্যাল মিডিয়া সবাই তাজ্জব হয়ে গেছে।

তাদের বলার কোনো ভাষা নেই এবং এই সোশ্যাল মিডিয়ায় খবর প্রচার হওয়ার সাথে সাথেই পুলিশও নড়েচড়ে বসেছে। তারাও তা বাচ্চাটির বাবা-মার খোঁজ চালাচ্ছে, কি করে এরকম ঘটনা ঘটতে পারে সেটা নিয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে।

কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, যে তারমানে কোন জিনিস সংবাদমাধ্যমের নজরে এসে তাকে প্রকাশ করার পর প্রশাসন নড়ে চড়ে বসবে? তাহলে প্রশাসনের ভূমিকা কোথায়? পুলিশ মিডিয়ার ওপর নির্ভরশীল হয়ে কাজকর্ম যদি করতে থাকে তাহলে তো অনেক বড় বড় দুর্ঘটনা ঘটে যাবে। যা ঘটে যাওয়ার পর পুলিশ গিয়ে সেখানে পৌঁছাবে। দিনে দিনে আমাদের সমাজ খুবই চিন্তাজনক একটা দিকে পৌঁছে যাচ্ছে। আমাদের সবাইকে সচেতন সজাগ থাকা উচিত।