নতুন ৮৯ হাজার পদে শিক্ষক নিয়োগ করা হবেঃ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

9
নতুন ৮৯ হাজার পদে শিক্ষক নিয়োগ করা হবেঃ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

পশ্চিমবঙ্গে প্রায়ই দেখা যায় বেকার যুবক যুবতীদের রাস্তায় আন্দোলন করতে। কারও দাবি তাদের নিয়োগ করা হচ্ছে না চাকরিতে অনেক বছর হয়ে গেল। কারও আবার দাবি যোগ্যতা থাকার সত্বেও চাকরী পাচ্ছেন না তাঁরা। এরকম প্রায়ই রাস্তা ঘাটে দেখা যায় আন্দোলনকারী যুবসমাজকে।

আর তাঁদের এই আবেদনের কারণেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানালেন, নতুন ৮৯ হাজার পদে শিক্ষক নিয়োগ করা হবে। পাশাপাশি আগামী ১৫ দিনের মধ্যে রাজ্যের ৩০ হাজার যুবক-যুবতীর হাতে নিয়োগপত্র তুলে দেওয়া হবে।
সোমবার বিশ্ব বাংলা মেলা প্রাঙ্গণে শিক্ষারত্ন প্রদানের অনুষ্ঠানে যান মুখ্যমন্ত্রী। সেখান থেকেই নতুন শিক্ষক নিয়োগের বিষয়টি বলেন সকলের উদ্দেশে। মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীর দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ইতিমধ্যে ২ লক্ষ ৬৩ হাজার শিক্ষক এবং অশিক্ষক পদে নিয়োগ হয়েছে রাজ্যে। আরও বহু পদে এতদিনে নিয়োগ করা হয়ে যেত বলে জানান তিনি।

তিনি আরো জানান যে শুধু শিক্ষক পদে নয় যোগ্যতা ভিত্তিক আরো অনেকগুলো পদে কর্মী নেওয়া হবে। রাজ্যের তরফে বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রশিক্ষণ দিয়ে ৩০ হাজার যুবক-যুবতীকে চাকরি দেওয়া হবে। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে তাঁদের হাতে নিয়োগপত্র তুলে দেওয়া হবে বলে ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী। বহু যুবক-যুবতীর অভিযোগ, যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও তাঁরা চাকরি পাননি। এমনকী, রাস্তায় নেমে আন্দোলন করছেন তাঁরা। এ প্রসঙ্গে শিক্ষক দিবসের অনুষ্ঠান থেকে মুখ্যমন্ত্রীর মন্তব্য, “যারা জাস্টিস পায়নি, তাঁরা কিন্তু জাস্টিস আমাদের থেকে পাবেন।” একইসঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আরো জানান যে, “আমরা কারও চাকরি খাইনি।”
এই কথা টা কিছুটা পার্থ বাবুর দিকেই বলেন বলে মনে করা হচ্ছে। কারণ এই শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে পার্থ চট্টোপাধ্যায়- এর সাথেও কথা বলেছেন তিনি সেটাও জানিয়েছেন ওইদিন।

শুধু তাই নয়, এইদিন তিনি বিরোধীদের কটাক্ষ করতেও ছাড়েননি। তিনি বলেন একের পর এক জনস্বার্থে মামলা হওয়ার জন্য নিয়োগ পিছিয়ে যাচ্ছে। তাঁর কথায়, “কিছু কিছু লোক আছে যারা নিজেও খায় না। অন্যকেও খেতে দেয় না। যা-ই করতে যাই একটা করে মামলা ঠুকে দেয়।” মূখ্যমন্ত্রী কটাক্ষ করে বলেন “একটা করে পিল খেয়ে নেয়।” সেই সঙ্গে নাম না করে আইনজীবী বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্যের সমালোচনা করেন তিনি।