বিনা পারিশ্রমিকে ম্যানগ্রোভ বীজ রোপন করলেন মাতলা অঞ্চলের ২০০ মহিলা

18
বিনা পারিশ্রমিকে ম্যানগ্রোভ বীজ রোপন করলেন মাতলা অঞ্চলের ২০০ মহিলা

ম্যানগ্রোভের গুরুত্ব যে কতটা তা ইয়াসের সময় ভালোভাবেই বুঝতে পেরেছে সুন্দরবন। মুখ্যমন্ত্রীও বারংবার জোর দিয়েছেন ম্যানগ্রোভ রোপণের উপরে। এবার সরকারের উদ্যোগে ২ লাখ ম্যানগ্রোভ মাতলা নদীর পরিত্যক্ত চরে রোপণ করা হচ্ছে। এই কাজে হাত লাগালেন ঝড়খালির মহিলারা। মাতলা অঞ্চলের ২০০ মহিলা বিনা পারিশ্রমিকে রোপন করলেন বিভিন্ন প্রজাতির ১০ হাজার ম্যানগ্রোভের বীজ। মঙ্গলবার ঝড়খালি সবুজ বাহিনী, দিল্লির সংস্থা গুঞ্জ ও বজবজের সংগঠন প্রত্যাশার উদ্যোগ কাজে নেমে পড়লেন ওইসব মহিলারা।

‘ম্যানগ্রোভ প্রমিলা বাহিনী’ সুন্দরবনের গরান, হেতাল, কেওড়া, সুন্দরী, ধুন্দল,খলসি,তরা সহ বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় ১০ হাজার বীজ রোপণ করে। ক্যানিং মাতলা নদীর পরিত্যক্ত চরে ২ লক্ষ বিভিন্ন প্রজাতির ম্যানগ্রোভের বীজ রোপণ করা হবে। এছাড়া মাতলা অঞ্চলে বিভিন্ন প্রজাতির ৫০ হাজার ফলের গাছের চারার নার্সারি তৈরি করা হবে। আর এই নার্সারি থেকে এই অঞ্চলের পিছিয়ে পড়া অসহায় পরিবার গুলির কর্মসংস্থান গড়ে উঠবে। ফলে এলাকার সামাজিক ও গ্রামীণ অথনৈতিক উন্নয়ন ঘটবে।

ঝড়খালি সবুজ বাহিনী সংগঠনের সভাপতি আকুল বিশ্বাস ও সম্পাদক প্রশান্ত সরকার বলেন, মাতলা অঞ্চলের প্রায় ২০০ জন মহিলা ম্যানগ্রোভকে ভালবেসে ক্যানিং মাতলা নদীর চরে ম্যানগ্রোভ বীজ রোপণের কাজে এগিয়ে আসে। আর এই বীজ রোপণের কাজে তারা কোন মজুরি নিচ্ছেন না। বাড়ির কাজকর্ম সেরে অবসর সময়ে এই সমস্ত মহিলারা এগিয়ে এসেছেন সুন্দরবনের প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষার্থে এবং ভূমিক্ষয় রোধে।

এদিকে ম্যানগ্রোভ প্রমিলা বাহিনীর রীনা মন্ডল,সাবিত্রী মন্ডল, কবিতা মন্ডল, অসীমা ঘরামী, পুষ্প দেবনাথ, কালোজান লস্কর, সন্ধ্যা মন্ডল,সুমিত্রা মন্ডল, দীপালি চক্রবর্তী, করুনা হালদাররা বলেন, প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষায় ও ভূমিক্ষয় রোধে ভালবেসে ক্যানিং মাতলা নদীর চরে ম্যানগ্রোভের বীজ রোপণ করা হচ্ছে। মাতলা-২ গ্রাম পঞ্চায়েতের সদস্য বিকাশ মজুমদার বলেন, এলাকার মহিলারা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আহ্বানে সাড়া দিয়ে ক্যানিং মাতলা নদীর পরিত্যক্ত চরে ম্যানগ্রোভ বীজ রোপণের কাজে এগিয়ে এসেছেন। এমন উদ্যোগ সত্যিই সাধুবাদ জানানোর মতো।