বিজেপি কর্মী খুনের প্রতিবাদে বাগনানে ১২ ঘন্টার বনধ, উত্তেজনা প্রশমনে নামানো হয়েছে র‌্যাফ

5
বিজেপি কর্মী খুনের প্রতিবাদে বাগনানে ১২ ঘন্টার বনধ, উত্তেজনা প্রশমনে নামানো হয়েছে র‌্যাফ

বিজেপি কর্মী কিঙ্কর মাঝি খুনের প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার হাওড়ার বাগনানে ১২ ঘন্টার বনধ ডেকেছেন বিজেপি কর্মী সমর্থকরা। কিঙ্কর মাঝি খুনের ঘটনার সমস্ত দায়ভার তৃণমূলের উপরেই আরোপ করেছে বিজেপি। তবে তৃণমূলে তরফ থেকে অবশ্য সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। এদিকে বিজেপি কর্মী খুনের প্রতিবাদ কর্মসূচি হিসেবে বুধবার জাতীয় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করতে থাকেন বিজেপি কর্মীরা।

উল্লেখ্য, গত ২৪শে অক্টোবর বাড়ির সামনে দুষ্কৃতীরা কিঙ্কর মাঝির ওপর হামলা চালায়। দুষ্কৃতীদের গুলির আঘাতে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় তার। এরপরই তৃণমূলের বিরুদ্ধে সুর চড়াতে থাকেন বিজেপি। বিজেপির অভিযোগ, রাজনৈতিক কারণেই এমন ঘটনা ঘটিয়েছে তৃণমূল। তবে, পুলিশের তরফ থেকে অবশ্য সেই দাবি খারিজ করা হয়েছে। পুলিশের তরফ থেকে প্রাথমিকভাবে জানানো হয়েছে, জমিসংক্রান্ত বিরোধের জেরেই খুন হয়েছেন বিজেপি কর্মী।

ঘটনার সঙ্গে জড়িত দুই জন আততায়ীর মধ্যে একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। অপরজন ফেরার। পলাতক অভিযুক্তকে গ্রেফতারির চেষ্টা চালানো হচ্ছে। এদিকে বিজেপি কর্মী খুনের ঘটনায় উত্তাল এলাকা। বিজেপির ডাকা বন্ধের জেরে সকাল থেকেই স্থানীয় এলাকার দোকানপাট বন্ধ রাখা হয়েছে। জনসাধারণের মধ্যে উত্তেজনা প্রশমনের জন্য এলাকায় র‌্যাফ, জলকামান এবং বিশাল পুলিশবাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে।

বিজেপির দাবি, ওই এলাকায় বিজেপি দলের প্রভাব বাড়ছে। তাই ভয় পেয়ে বিজেপি কর্মীদের উপর হামলা চালাচ্ছে তৃণমূল। বুধবার, বাগনানের মনসাতলা এলাকায় জাতীয় সড়কের উপর টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন বিজেপি কর্মীরা। তবে, হাওড়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রানা মুখার্জি জানিয়েছেন, এলাকায় বন্ধের কোনো প্রভাব পড়েনি। তিনি আরো জানিয়েছেন, এলাকার শান্তি বিঘ্নিত হলে উপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করবে পুলিশ।