ব্রাহ্মণ্যবাদের বিরুদ্ধে প্ররোচনামূলক মন্ত্যব্য! গ্রেপ্তার মুখ্যমন্ত্রী ভূপেন্দ্র বাঘেলের বাবা

6
ব্রাহ্মণ্যবাদের বিরুদ্ধে প্ররোচনামূলক মন্ত্যব্য! গ্রেপ্তার মুখ্যমন্ত্রী ভূপেন্দ্র বাঘেলের বাবা

ব্রাহ্মণ্যবাদের বিরুদ্ধে প্ররোচনামূলক উস্কানি দিলে রেহাই পাবেন না কেউ! সম্প্রতি ছত্রিশগড় রাজ্যে মিলল তার প্রমাণ। ব্রাহ্মণ্যবাদের বিরুদ্ধে প্ররোচনামূলক উস্কানি দেওয়ার অভিযোগের ভিত্তিতে গ্রেফতার করা হল নন্দকুমার বাঘেলকে। তিনি ছত্রিশগড়ের মুখ্যমন্ত্রী ভূপেন্দ্র বাঘেলের বাবা। তবুও তার বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙুল উঠলে তাকে শাস্তির হাত থেকে রক্ষা করলেন না ছেলে। উপরন্তু পুলিশের কাছে ধরিয়ে দিলেন বাবাকে। এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে রাজনৈতিক মহলে।

সম্প্রতি নন্দকুমার বাঘেলকে গ্রেপ্তার করেছে ছত্রিশগড় পুলিশ। আগামী ২১শে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত পুলিশি হেফাজতে থাকতে হবে তাকে। একটি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর বাবাকে এইভাবে গ্রেপ্তার করার পরিপ্রেক্ষিতে রাজনৈতিক মহলে জোর চর্চা শুরু হয়েছে। ভোটারদের সচেতন করার একটি গোষ্ঠী ও ওবিসি অধিকার সম্পর্কিত লড়াইয়ের অন্যতম নেতা হলেন নন্দকুমার বাঘেল। সম্প্রতি প্রচারকার্যে উত্তরপ্রদেশ গিয়েছিলেন তিনি। সেখানে গিয়ে তিনি বলেন ‘ব্রাহ্মণরা’ হলো বিদেশি। একইসঙ্গে তিনি বলেন ব্রাহ্মণদের যেন এই গ্রামে ঢুকতে দেওয়া না হয়।

তিনি আরো বলেন গঙ্গা নদী থেকে ভল্গায় পাঠিয়ে দেওয়া হবে ব্রাহ্মণদের। তিনি অভিযোগ করেন, ব্রাহ্মণরা অন্যান্য সম্প্রদায়কে অস্পৃশ্য ভাবেন। তারা সংরক্ষণের আওতাভুক্ত মানুষের অধিকার কেড়ে নিচ্ছেন। তাই গ্রামবাসীদের কাছে তিনি এই বলে আবেদন জানান যেন ব্রাহ্মণদের গ্রামে ঢুকতে দেওয়া না হয়। নন্দকুমার বাঘের এই উত্তর প্রদেশ যাত্রা এবং বিতর্কিত মন্তব্য করার ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যাওয়ার পর থেকেইঔ এই নিয়ে সমালোচনা শুরু হয়। তারপর রাইপুরে তার বিরুদ্ধে একটি এফআইআর দায়ের করা হয়।

তারপরেই নন্দকুমার বাঘেলকে গ্রেফতার করার জন্য ছত্রিশগড়ের মুখ্যমন্ত্রীর উপর চাপ বাড়াতে থাকে বিজেপি। শেষমেষ তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এই ঘটনা প্রসঙ্গে ছত্রিশগড়ের মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, তার সরকারে কেউই আইনের উর্ধে নয়। এমনকি তার বাবাও না। তিনি আরো বলেছেন একজন মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে প্রত্যেক সম্প্রদায়ের মানুষের মধ্যে সম্প্রীতি বজায় রাখা তার দায়িত্ব। তার বাবা যে মন্তব্য করেছেন তার জন্য তিনি আন্তরিকভাবে দুঃখপ্রকাশ করেছেন।